প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী ১৪০ তম
প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী ১৪০ তম

আজ ৩রা এপ্রিল,

১৮৮০ সালের এই দিনে কয়েকজন শিক্ষানুরাগী ও সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী টাঙ্গাইলের একটি সাধারণ বিদ্যালয়কে উচ্চ বিদায়লয়ে উন্নীত করেন। সেই সময় ময়মনসিংহ জেলার জেলা প্রশাসক গ্রাহাম-এর নামে এর নামকরণ করা হয় গ্রাহাম ইংলিশ হাই স্কুল। পাঁচ বছর বিদ্যালয়টি অর্থ সমস্যার ভেতর দিয়ে পরিচালিত হবার পর আর্থিক সুবিধার জন্য টাঙ্গাইলের ধনবাড়ীর জমিদার নবাব বাহাদুর নওয়াব আলী চৌধুরী কাছে বিদ্যালয়টি দেয়া হয়। জমিদার দুই বছর বিদ্যালয়ের পরিচালনার ব্যয়ভার বহন করেন।

পুরাতন ভবন

১৮৮৭ সালে টাঙ্গাইলের সন্তোষের ভূম্যধিকারিণী বিন্দুবাসিনী চৌধুরানী বিদ্যালয়টি পরিচালনার ব্যয়ভার নেন। তার অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ বিদ্যালয়ের নাম তার নামনুসারে নামকরণ করা হয়। ১৯১০ সাল পর্যন্ত তিনি এ বিদ্যালয়ের ব্যয়ভার বহন করেন। একই বছর তিনি একটি ট্রাস্ট গঠন করেন ও ট্রাস্ট সম্পত্তি আকারে তা সরকারের কাছে দেয়া হয়। এরপর বিদ্যালয়টি সরকারী অর্থ সহায়তায় পরিচালিত হয়। বিন্দুবাসিনী চৌধুরানীর মৃত্যুর পর তার দুই ছেলে জমিদার প্রমথ নাথ রায় চৌধুরী ও মন্মথ নাথ রায় চৌধুরী বিদ্যালয়ের স্থান, উদ্যান, নিউ মার্কেটসহ ছাত্রাবাস ও স্টেডিয়াম সংলগ্ন পুকুরের জায়গা বিদ্যালয়ের নামে দান করেন এবং বিভিন্ন অবকাঠামো নির্মাণ করেন। ১ ফেব্রুয়ারি ১৯৭০ সালে বিদ্যালয়টিকে জাতীয়করণ করা হয়। ১৯৯১ সালে বিদ্যালয়ে দ্বৈত শিফট চালু করা হয়।

বিদ্যালয়টিতে বর্তমানে প্রধান শিক্ষক হিসেবে আছেন শিক্ষানুরাগী মোঃ আব্দুল করিম স্যার।দুই শিফট নিয়ে মোট ছাত্র ১৮০০ জন।

প্রশাসনিক ভবন

অবস্থান

টাঙ্গাইল শহরের প্রাণকেন্দ্র, টাঙ্গাইল পৌরসভার ৪ নং দিঘুলিয়া ওয়ার্ডের পার দিঘুলিয়া মৌজায় অবস্থিত। পূর্বে জেলা সদর রোড, নিরালা মোড়, পৌরসভা ভবন, সোনালি ব্যাংক লিমিটেড, প্রধান শাখা, শহীদ মিনার, পশ্চিমে স্ট্যান্ড রোড ও মডেল প্রাইমারী স্কুল, দক্ষিণে পার্ক বাজার রোড এবং উত্তরে স্টেডিয়াম রোড।

একাডেমিক ভবন ও অডিটরিয়াম

এই বিদ্যালয় থেকে যেসব খ্যাতিমান শিক্ষার্থী পড়ালেখা করে গেছেন তাদের তালিকা দেওয়া হল………

কৃতি ছাত্র যাঁরা স্বপ্রতিভায় ভাস্বরঃ

প্রতিষ্ঠার পর থেকে এই বিদ্যালয়ের অগণিত ছাত্র পাক-ভারতসহ সারা পৃথিবীতে অসামান্য কৃতিত্বের স্বার রেখে এসেছেন।

 ক্রঃনং             নাম                                             কর্মক্ষেত্র

 ০১   জনাব আবু সাঈদ চৌধুরী                     বাংলাদেশের প্রয়াত রাষ্ট্রপতি, বিচারপতি

০২   জনাব ডঃ এম.এন হুদা,                        অর্থমন্ত্রী

০৩   জনাব দেবেশ ভট্টাচার্য                         সাবেক বিচারপতি

০৪   জনাব মোঃ আব্দুল মান্নান                      সাবেক স্বরাষ্ট্র ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী

০৫   জনাব মানিক বন্দোপাধ্যায়                    ঔপন্যাসিক

০৬   জনাব অনুপম ঘটক                           বিখ্যাত সুর শিল্পী

০৭   জনাব রথীন্দ্রনাথ ঘোষ ঠাকুর                 অধ্যাপক

০৮   খন্দকার আসাদুজ্জামান                       এমপি, সভাপতি, সংস্থাপন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটি

০৯   জনাব শাহজাহান সিরাজ                      স্বাধীনতার ইশতেহার পাঠক, সাবেক পরিবেশ ও বন মন্ত্রী

১০   জনাব আব্দুল লতিফ সিদ্দিকী                  মহান মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক, সাবেক মাননীয় বস্ত্র ও পাট মন্ত্রী

১১   জনাব শামছুর রহমান খান শাজাহান         রাজনীতিবিদ ও সাবেক সংসদ সদস্য

১২   জনাব আনোয়ারুল আলম শহীদ              মহান মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক, সাবেক সচিব ও রাষ্ট্রদূত

১৩   জনাব হাসান মাহমুদ খন্দকার               র‌্যাবের বর্তমান মহাপরিচালক

১৪   জনাব আব্দুস সালাম                          চেয়ারম্যান একুশে টিভি

১৫   জনাব ড. হাছান মাহমুদ                     সাবেক মাননীয় পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী

১৬   জনাব ফজলুর রহমান খান ফারুক         সাবেক এমপি

১৭   জনাব সামছুল হক                           রাজনীতিবিদ

১৮   জনাব শওকত আলী তালুকদার            সাবেক পৌরসভা ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান

১৯   জনাব বুলবুল খান মাহবুবু                  কবি

২০   জনাব সায্যাদ কাদির                        কবি

২১   জনাব আল মুজাহিদী                         কবি

২২   প্রফেসর ড. মাহবুব সাদিক                  কবি

২৩   অধ্যাপক ডা. খন্দকার আব্দুল আউয়াল রিজভী   পরিচালক, জাতীয় অর্থোপেডিক হাসপাতাল, ঢাকা

২৪   জনাব ড. আলীম আল রাজী                শিক্ষাবিদ ও রাজনীতিবিদ

২৫   জনাব সামিউল ইসলাম নাসা               (নাসা), আমেরিকায় কর্মরত

২৬   জনাব জাকির হোসেন                       নির্বাহী পরিচালক, ব্যুরো বাংলাদেশ

২৭   জনাব লায়ন নজরুল ইসলাম                চেয়ারম্যান নাজ গ্রপ

২৮   জনাব জামিলুর রহমান (মিরন)           মেয়র, টাঙ্গাইল পৌরসভা

২৯   জনাব হামিদুল হক মোহন                   রাজনীতিবিদ

৩০   যোগেন্দ্র চন্দ্র চক্রবর্তী                      সাবেক খ্যাতিমান প্রধান শিক, বিন্দুবাসিনী সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়

৩১   হীরেন্দ্র চন্দ্র চক্রবর্তী                        সাবেক শিক্ষক, বিন্দুবাসিনী সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়

 ৩২   অধ্য মোঃ খোদা বখশ মিয়া               সাবেক অধ্যাপক

৩৩   প্রফেসর রনজিত কান্ত সরকার            সাবেক অধ্যাপক, সরকারি সা’দত কলেজ, টাঙ্গাইল।

৩৪   প্রফেসর ড. সাইদুল ইসলাম খান           জাতিসংঘের পরিবেশ পরিকল্পনাবিদ

৩৫   রনজিৎ দাস                                 আন্তর্জাতিক খ্যাতি সম্পন্ন চিত্রশিল্পী

৩৬   মো. আব্দুল করিম                          বর্তমান প্রধান শিক্ষক,বিন্দুবাসিনী সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়

 সম্মানীত সাবেক ছাত্রদের আরও অনেকের তথ্য সময় স্বল্পতার কারণে সন্নিবেশিত করতে না পারায় আমরা আন্তরিকভাবে দুঃখিত।

সম্পুর্ন বিদ্যালয়

বিদ্যালয়ের সুদীর্ঘ পথ উজ্জ্বল হোক। BDHoroscope.com এর পক্ষ হতে অভিনন্দন।

Comments

comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here